দৈনিক আবেশভূমি ডেস্ক: এগরা কাঁথি:পূর্ব মেদিনীপুর।।                                                 কাঁথি ও এগরা মহকুমা সহ পূর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে কামার,কুমোর, স্বর্ণকার, কাঁসাপিতল, তন্তুবায় প্রভৃতি হস্তশিল্প বিপর্যস্ত ও কারিগররা করোনা লকডাউন জনিত কারণে কর্মহীন ও অর্থনৈতিক দুরবস্থার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। দেশপ্রাণ ব্লকের দুরমুঠ,চাঁপাতলা, কাঁথি পৌরসভার পদ্মপুকুরিয়া,রামনগর -২ ব্লকের মৈতনা ও মান্দারপুর,কাঁথি -১ ব্লকের রানিয়া,পানিয়া প্রভৃতি এলাকায় পলিথিন ও প্লাস্টিকের একছত্র অধিপত্যে মাটির হাঁড়ি, কলসি ইত্যাদির চাহিদা তলানিতে। কাঁথি-৩ ব্লকের দইসাই সহ বিভিন্ন এলাকায় কামার শিল্প ভেন্টিলেটরে শায়িত। মুগবেড়িয়া ও অমর্ষী প্রভৃতি জায়গায় তাঁতশিল্প মন্দাগ্রস্ত। রামনগর -২ ব্লকের চন্দনপুর সহ বিভিন্ন এলাকায় কাঁসাপিতল শিল্প ধুঁকছে। স্বর্ণশিল্প চাহিদার অভাবে রুগ্ন হয়ে পড়েছে। গোদের উপর বিষফোঁড়া র মত করোনা লকডাউন ও অামফান দুর্যোগ জনিত কারণে এই ধরনের হাজার হাজার হস্তশিল্পী ও কারিগররা কাজের অভাবে অর্থনৈতিক ভাবে বিধ্বস্ত।

    সিপিঅাইএম নেতা তথা প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন হাজার হাজার হস্তশিল্পী ও কারিগর দের অর্থনৈতিক দুর্দশা থেকে রক্ষা করতে প্রত্যেকর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে মাসে ৭৫০০ টাকা করে অনুদান প্রদান সহ হস্তশিল্প ও কুটীরশিল্প কে রক্ষা করতে অর্থনৈতিক প্যাকেজ ঘোষণার অাবেদন জানিয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন। সিপিঅাইএম নেতা মামুদ হোসেন বলেন রাজ্যে শিল্পায়ন অকুল পাথারে ভাসছে। হস্তশিল্প, কুটীরশিল্প কে রক্ষার জন্য কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার কোন সদর্থক ব্যবস্হা গ্রহণ না করলে গ্রামীণ অর্থনীতি ভেঙে পড়বে।অাশু ব্যবস্হা গ্রহণ জরুরী।

      Share

      Leave a Reply

      Your email address will not be published.